Bangla Font Design Tutorial in Adobe Iluustrator | বাংলা ফন্ট ডিজাইন টিউটোরিয়াল | Bangla-Typography | part: 01

 আজকে আমরা আলোচনা করব কিভাবে বাংলা ফন্ট ডিজাইন করবেন। ইতিপূর্বে আমরা বাংলা টাইপোগ্রাফি ডিজাইন নিয়ে একাধিক ভিডিও তৈরি করেছি। সেগুলো আমাদের ইউটুব চ্যানেল থেকে দেখে আসতে পারেন। ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় ১৯৭৮ সালের সর্বপ্রথম বাংলা ফন্ট তৈরি করা হয়। এর ধারাবাহিকতায় এ পর্যন্ত বহু ফন্ট তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু, ফন্ট ডিজাইন সম্পর্কে তেমন একটা ভিডিও অনলাইনে নজরে আসে না। এ কারণে অনেকেই বাংলা ফন্ট ডিজাইন করার প্রতি আগ্রহ থাকা সত্বেও সঠিক দিক নির্দেশনার না পাওয়ার কারণে পিছপা হয়ে পড়েন। আমি আমার ক্ষুদ্র জ্ঞান দ্বারা আমার পক্ষ থেকে যতটুকু পারি সাহায্য করব।


Easily create Bangla fonts in Adobe Illustrator.  part: 01. এডোবি ইলাস্ট্রেটরে বাংলা ফন্ট সহজেই তৈরি করুন। ms Art


বলে রাখা ভালো: এখানে আমি ফন্ট ডেভেলপ সম্পর্কে কোনো আলোচনা করব না। আপনি যদি আপনার ডিজাইনকৃত ফন্ট ডেভেলপ করাতে চান। তাহলে fontbd  তে যোগাযোগ করতে পারেন। যদি আপনার ডিজাইন করা কাজটি তাদের পছন্দ হয় তাহলে তারা আপনার ডিজিইন করা কাজটি ডেভেলপ করে তাদের ওয়েবসাইট থেকে পাবলিশ করবে এবং তারা আপনাকে তার উপযুক্ত সম্মানী প্রদান করবে।


মূল প্রসঙ্গে ফিরে আসি, যেহেতু আমি আপনাদেরকে প্রতিটি অক্ষর পৃথক পৃথকভাবে ডিজাইন করে দেখাবো এবং  ডিজাইন করার একাধিক পদ্ধতির দেখাবো। তাছাড়া এক পর্বে আপনাদেরকে সবকিছু শেখানো সম্ভব নয়। এজন্য আমি এটিকে কয়েকটি পর্বে ভাগ করেছি। এপর্বে বাংলা ফন্ট ডিজাইন এর পূর্ব প্রস্তুতি সম্পর্কে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়া হবে।


আমি পূর্বে বলেছিলাম ডিজাইনগণ সাধারনত Adobe Illustrator ব্যবহার করে ফন্ট ডিজাইন করে থাকেন আর Fontlab বা এজাতীয় সফটওয়্যার দিয়ে ফন্টের ডেভলপের কাজটি সম্পন্ন করে থাকেন। তাই আমি Adobe Illustrator দিয়ে প্রতিটি অক্ষর ডিজাইন করে দেখাবো


ফন্ট ডিজাইনের ক্ষেত্রে যে টুল বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকে:

Pen Tool:

pen tool ব্যবহার করে অক্ষরগুলোর সহজে ডিজাইন করা যায়। ডিজাইনের ক্ষেত্রে pen tool এর ব্যবহার অপরিসীম। pen tool এর সাহায্যে অক্ষরকে যে কোন রৃপ দেওয়া সহজ। মোট কথা, ফন্ট ডিজাইনের পূর্বে আপনাকে pen tool এর ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা জ্ঞান থাকতে হবে।


Curvature Tool:

ফন্ট ডিজাইন Curvature Tool অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। সকল মূলত পেন টুলের কাজকে আরও বহুগুণ সহজ করে দেয়। Curvature Tool এর সাহায্যে একটি সমান্তরাল Path কে অন্য Path এ রূপান্তর করা যায় খুব সহজে। তাছাড়া এই টুলটি ডিজাইনকে আরো বেশি সুন্দর এবং Smoth করতে  ব্যবহৃত হয়।


Direct Select Tool:

Direct Select Tool দিয়ে পথ গুলো সঠিক ভাবে এবং সঠিক স্থানে স্থানান্তরিত করা যায়। ফন্ট ডিজাইনে এ টুলটিও ব্যবহৃত হয়ে থাকে।


Grid Option:

সকল অক্ষর উপরে এবং নিচে সমান রাখতে সাহায্য করে। এ অপশনটি ব্যবহার করা হয় অক্ষরগুলোর মাপ ঠিক রাখার জন্য।


Width Tool:

Width Tool এর দ্বারা Stroke এর যেকোন অংশকে নির্দিষ্ট করে সেটিকে সহজেই মোটা বা চিকন করা যায়। 


Brush Tool: 

অন্যান্য টুল বাদ দিয়ে শুধু ব্রাশ টুল ব্যবহার করে ফন্ট ডিজাইন করা যায়। এক্ষেত্রে আপনি কাস্টম ব্রাশ, টাইপোগ্রাফি ব্রাশ দিয়ে ফন্ট ডিজাইন করতে পারেন। অনেক বাংলা ফন্ট ব্রাশ টুল ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে।


Blob Brush Tool:

Blob Brush Tool আর Brush Tool এর মাঝে তেমন কোন পার্থক্য নেই। তবে কিছু পার্থক্য আমার নজরে এসেছে। যেমন: Blob Brush Tool দিয়ে কোন কিছু অংকন করলে সেটি সরাসরি  Path এ রূপান্তরিত হয়। কিন্তু, ব্রাশ টুল ব্যবহার করে কোন কিছু অংকন করলে সেটি স্ট্রোকের উপর অংকিত হয়। অতঃপর সেটিকে এক্সপান্ড করে Path এ রূপান্তরিত করতে হয়।

তাছাড়া আরও একটি পার্থক্য রয়েছে। সেটি হল: যদি আপনি গ্রাফিক্স ট্যাব ব্যবহার করেন। তাহলে ক্যালিগ্রাফিক ব্রাশে প্রেসার অপশনটি পাবেন। কিন্তু Blob Brush Tool এ প্রেসার অপশনটি পাবেন না।


*ডিজাইনের জন্য সর্বোত্তম পদ্ধতি হলো: প্রথমে কাগজে প্রতিটি অক্ষর কাগজে এঁকে সে গুলোকে স্ক্যান করে বা ছবি তুলে কম্পিউটারে নিয়ে সেগুলোর উপর পেন টুলের সাহায্যে ডিজাইন করা।


নিচের ভিডিওতে প্রতিটি টুলের ব্যবহার দেখানো হয়েছে। ভিডিওটি ভালো করে দেখুন।


অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো
Post ADS 2